পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার উপায় ২০২২

 ছাত্রজীবনে লেখাপড়ার পাশাপাশি আয় করা একটি বহুল প্রচলিত ধারণা। আমরা অনেকেই লেখাপড়ার পাশাপাশি কিছু আয় করার চিন্তা করি। কিন্তু সঠিক কোন গাইডলাইন না থাকার কারণে আমাদের চিন্তা বাস্তবে পরিণত করতে পারিনা। আমরা অনেকেই জানতে চাই ছাত্রজীবনে কিভাবে টাকা আয় করতে হয়?

আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন কিভাবে পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করা যায়।

পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার উপায় ২০২২

পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার উপায়

লেখাপড়ার পাশাপাশি আয় করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হল টিউশনি। অনেক ছাত্র লেখাপড়ার পাশাপাশি টিউশনি করে তাদের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে নিতে পারে। টিউশনির বিষয় আমাদের সকলেই কমবেশি জানা আছে। তাই এই আর্টিকেলে আমরা টিউশনি ছাড়া অন্য কোন উপায় লেখাপড়ার পাশাপাশি টাকা আয় করা যায় তা জানব।

ব্লগিং করে টাকা আয়:

আপনার যদি লেখালেখির অভ্যাস থাকে তাহলে আপনি এর মাধ্যমে খুব সহজেই অনেক টাকা আয় করতে পারবেন। অনলাইন থেকে আয় করার সহজ মাধ্যম গুলোর মধ্যে ব্লগিং অন্যতম। আপনি পড়াশোনার পাশাপাশি খুব অল্প সময় ব্যয় করে ব্লগিং করতে পারবেন।

ব্লগিং হচ্ছে  পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার উপায় অন্যতম প্রধান উপায়। ব্লগিং বলতে বোঝায় আপনি একটি ওয়েবসাইটে বিভিন্ন বিষয়ের উপর মানসম্মত আর্টিকেল লিখবেন এবং আপনার ভিজিটর দের কে অ্যাড দেখানোর মাধ্যমে অ্যাড কোম্পানির কাছ থেকে টাকা পাবেন। ব্লগিং করে অনেকে মাসে লক্ষাধিক টাকা আয় করে থাকে।

ব্লগিং করার জন্য আপনাকে ব্লগিং বিষয়ে বিস্তারিত জানতে হবে। ইউটিউবে সার্চ করলে অনেক ভিডিও পেয়ে যাবেন। ব্লগিং করার জন্য আপনাকে বেশি টাকা খরচ করতে হবে না। খুব সামান্য পরিমাণ টাকা ইনভেস্ট করে ভাল আর্টিকেল লেখার মাধ্যমে আপনি প্রচুর ইনকাম করতে পারবেন। এজন্য আপনাকে একটি ব্লগ ওয়েবসাইট বানাতে হবে।


ব্লগ ওয়েবসাইট বানানোর জন্য দুইটি জনপ্রিয় সিএমএস প্লাটফর্ম হল ব্লগার ও ওয়ার্ডপ্রেস। ওয়ার্ডপ্রেসের চেয়ে ব্লগারে তুলনামূলক কম খরচ হয়। আপনি নতুন হিসেবে ব্লগার কে বেচে নিতে পারেন। কারণ ব্লগার ব্যবহার করা তুলনামূলক সহজ। এটি ম্যানেজ করার জন্য আপনাকে জটিল কিছু জানতে হবে না।

একটি ওয়েবসাইট বানিয়ে, সঠিকভাবে কী-ওয়ার্ড রিসার্চ করে নিয়মিত আর্টিকেল প্রকাশ করে গেলে কয়েক মাসের মধ্যেই ভালো একটা আয়ের মাধ্যম হবে এটি।
আপনি যদি ছাত্র হয়ে থাকেন এবং লেখাপড়ার পাশাপাশি টাকা আয় করতে চান তাহলে ব্লগিং আপনার জন্য অন্যতম একটি মাধ্যম হতে পারে।

কন্টেন্ট রাইটিং এর মাধ্যমে আয়:

আপনার যদি ইংলিশ সম্পর্কে ভালো ধারণ থাকে তাহলে কনটেন্ট রাইটিং আপনার জন্য আয়ের বড় মাধ্যম হতে পারে। আপনি চাইলে বাংলাতেও কনটেন্ট রাইটিং করতে পারেন। তবে ইংলিশ কনটেন্টের চাহিদা এবং দাম অনেক বেশি। 


কনটেন্ট রাইটিং একপ্রকার ব্লগিং এর মতই। কিন্তু এর জন্য আপনাকে কোন ওয়েবসাইট বানাতে হবে না। আপনি অন্যের ওয়েবসাইটের জন্য আর্টিকেল লিখে দিবেন এবং এর জন্য ওয়েবসাইটের মালিক আপনাকে অর্থ প্রদান করবে। পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার উপায় আয় করতে অবশ্যই আপনি কনটেন্ট রাইটিং শিখুন।

আপনি কন্টেন্ট রাইটিং এ  দক্ষ হলে এর মাধ্যমে প্রচুর আয় করতে পারবেন। কেননা কন্টেন্ট রাইটিং এর জন্য বিভিন্ন এজেন্সি রয়েছে। তারা বিভিন্ন ওয়েবসাইটের জন্য আর্টিকেল লিখে থাকে এবং এর মাধ্যমে বড় একটা অ্যামাউন্ট আয় করে। মানসম্মত কন্টেন্ট লিখতে অবশ্যই আপনাকে দক্ষ হতে হবে।


দিন দিন কনটেন্ট রাইটার এর চাহিদা বাড়ছে। কেননা এখন অসংখ্য ব্লগিং ওয়েবসাইট, অনলাইন নিউজ পোর্টাল, প্রডাক্ট রিভিউ ওয়েবসাইট আছে। দিন দিন এসব ওয়েবসাইটের সংখ্যা বেড়েই চলেছে এবং তাদের কনটেন্ট রাইটার প্রয়োজন। আপনি কনটেন্ট রাইটিং এ ভালো দক্ষতা অর্জন করতে পারলে বেশ ভালো একটা অ্যামাউন্ট আয় করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে টাকা আয়:

বড় বড় অনলাইন শপিং কোম্পানিগুলোতে এফিলিয়েট প্রোগ্রাম নামক একটি সিস্টেম রয়েছে। অ্যামাজন, দারাজ, বিডি শপ ইত্যাদি অনেক কোম্পানিতে এফিলিয়েট প্রোগ্রাম রয়েছে। 


আপনি এসব এফিলিয়েট প্রোগ্রাম এর জয়েন করলে আপনাকে একটা লিংক দেওয়া হবে। আপনার লিঙ্ক থেকে ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে কেউ কোনো পণ্য কিনলে সেখান থেকে আপনি নির্দিষ্ট একটা কমিশন পাবেন। এখানে আপনার লিঙ্ক থেকে যত বেশি সেল হবে আপনি তত বেশি কমিশন পাবেন।

আপনি এই কাজটি ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার, ইউটিউব, ওয়েবসাইট ইত্যাদির মাধ্যমে প্রচার করতে পারেন। যত বেশি প্রচার করতে পারবেন তত বেশি আপনার মাধ্যমে পণ্য সেল হওয়া সম্ভাবনা বাড়বে। এবং সাথে সাথে আপনারা আয়ও বাড়বে। তাই আপনি যদি ছাত্র হয়ে থাকেন এফিলিয়েট মার্কেটিং আপনার জন্য বড় একটি মাধ্যম হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ ইউটিউব থেকে আয় করার ৫ উপায়

এসইও (Seo):

আমরা যখন ইন্টারনেটে কোন কিছু সার্চ করি, তখন সার্চ ইঞ্জিন আমাদের সামনে অনেকগুলো রেজাল্ট দেখায়। তখন আমরা আমাদের কাঙ্খিত বিষয়টি জানার জন্য প্রদর্শিত রেজাল্টের প্রথমে অবস্থানরত কয়েকটি ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে তথ্যটি জেনে নেই। এখন প্রশ্ন হলো এতগুলো ওয়েবসাইট থাকতে সার্চ ইঞ্জিন কিছু ওয়েবসাইট কে প্রথমে রাখলো কেন? চলুন জানা যাক।

নিজের দক্ষতা থাকলে পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করা খুবই সহজ। তাই আপনি এস ইও নিয়ে আপনার দক্ষতা অর্জন করুন। Seo বা Search engine optimisation হলো এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে ওয়েবসাইটের কিওয়ার্ড কে সার্চ ইঞ্জিনের রেংকিং(প্রথমে) এ আনা হয়। প্রযুক্তিগত কিছু কলা কৌশল এর মাধ্যমে এই কাজটি করা হয়ে থাকে। 


এসইও একটি ওয়েবসাইটকে রেঙ্ককিংয়ে আনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর একটি ওয়েবসাইটে বেশি ট্রাফিক পাওয়ার জন্য অথবা ই-কমার্স বা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের ব্যবসার প্রসারের জন্য প্রতিষ্ঠান এর ওয়েবসাইটকে রেংকিংয়ে আনা অপরিহার্য।

বর্তমান মার্কেটপ্লেসে এসইও এক্সপার্ট দের চাহিদা অনেক। এবং এই চাহিদা কখনো কমবেনা বরং বাড়বে। প্রতিনিয়তঃ ব্লগিং, ই-কমার্স, এজেন্সি ইত্যাদি ওয়েবসাইটের  সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেইসাথে এসইও এক্সপার্ট দের ও চাহিদা বাড়ছে।


আপনি যদি একজন বেশি এক্সপার্ট হতে পারেন তাহলে আপনি অনেক আয় করতে পারবেন। তবে আপনাকে ধৈর্য ধরে শিখতে হবে। কেননা ভালো সার্ভিস দিতে না পারলে আপনি মার্কেটপ্লেস এ টিকতে পারবেন না। 
এমনকি নিজে ব্লগিং করতে গেলেও আপনাকে এসইও জানতে হবে।

আমাদের শেষ কথা:

আজকের আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে আপনি জানতে পারলেন পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করার উপায়। আমরা এখানে যে বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করেছি এগুলো ছাড়া আরও অনেক উপায় রয়েছে। আপনি সঠিক গাইডলাইন ও সর্বোচ্চ চেষ্টার মাধ্যমে এই উপায়গুলো আয়ত্ত করতে পারবেন। যার মাধ্যমে আপনি পড়ালেখার পাশাপাশি আয় করতে পারবেন। আজকের আর্টিকেলটি কেমন লাগলো এবং কোন সমস্যা থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।‌

Please Share this On:

Next Post Previous Post
2 Comments
  • Shahzalal Hossain
    Shahzalal Hossain 14 Apr 2022, 12:24:00

    😳😳😳

    • Sharif ahmed
      Sharif ahmed 14 Apr 2022, 16:07:00

      🖤🖤

Add Comment
comment url